৭ম শ্রেণির ষান্মাসিক মূল্যায়ন ইসলাম শিক্ষা ২০২৪ প্রশ্ন ও সমাধান | Class 7 Sanmansik Mullayon Islam Shikkha Answer 2024

৭ম শ্রেণির ষান্মাসিক মূল্যায়ন ইসলাম শিক্ষা ২০২৪ প্রশ্ন ও সমাধান | Class 7 Sanmansik Mullayon Islam Shikkha Answer 2024 খুঁজছেন? তাহলে আপনি ঠিক জায়গাতেই আছেন। সুপ্রিয় ৬ষ্ঠ/৭ম/৮ম/৯ম শ্রেণির শিক্ষার্থীবন্ধুরা শুভেচ্ছা নিও। নিশ্চয়ই তোমরা সবাই ভাল আছ। আমাদের শিক্ষাকেয়ার ওয়েবসাইটে আপনার ষষ্ঠ/সপ্তম/অষ্টম/নবম শ্রেণির ষান্মাসিক মূল্যায়ন এর বাংলা/গণিত/ইংরেজি/বিজ্ঞান/ইতিহাস ও সামাজিক বিজ্ঞান/স্বাস্থ্য সুরক্ষা/জীবন ও জীবিকা/ডিজিটাল প্রযুক্তি/ইসলাম শিক্ষা/হিন্দুধর্ম শিক্ষা/শিল্প ও সংস্কৃতি বিষয়ের প্রশ্ন ও উত্তর/সমাধান ২০২৪ পেয়ে যাবেন। আজকে তোমাদের সাথে সপ্তম শ্রেণির ষান্মাসিক মূল্যায়ন ইসলাম শিক্ষা ২০২৪ প্রশ্ন ও সমাধান (Class 7 Sanmansik Mullayon Islam Shikkha Answer 2024) পোস্টটি শেয়ার করব। যদি সপ্তম শ্রেণির ষান্মাসিক মূল্যায়ন ইসলাম শিক্ষা ২০২৪ প্রশ্ন ও সমাধান পোস্টটি তোমাদের উপকারে আসবে এবং যদি পোস্টটি ভাল লাগলে ✉ কমেন্ট এবং শেয়ার করে আমাদের উৎসাহিত করবেন। নিচে দেওয়া Download লিংকে ক্লিক করে তথ্যটির ✂ পিডিএফ ফাইল ডাউনলোড করতে পারবে। তাহলে চলো সপ্তম শ্রেণির ষান্মাসিক মূল্যায়ন ইসলাম শিক্ষা ২০২৪ প্রশ্ন ও সমাধান ব্লগটি দেখে নেওয়া যাক...

৭ম শ্রেণির ষান্মাসিক মূল্যায়ন ইসলাম শিক্ষা ২০২৪

নতুন শিক্ষাক্রমে ষষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণির ষান্মাসিক মূল্যায়ন শুরু হচ্ছে আগামী ৬ জুলাই থেকে। একটি কর্মদিবসে একটি বিষয়ের মূল্যায়ন অনুষ্ঠিত হবে বিরতিসহ ৫ ঘণ্টায়। মূল্যায়নে লিখিত অংশও থাকবে। ষান্মাসিক মূল্যায়নে যুক্ত হবে শিক্ষার্থীর শিখনকালীন পারদর্শিতা, অর্থাৎ সে কতটুকু শিখতে পারলো। ছয় মাসের মূল্যায়নের পর বছর শেষে অনুষ্ঠিত হবে বার্ষিক মূল্যায়ন। বার্ষিক মূল্যায়ন শেষে পরবর্তী শ্রেণিতে উঠতে হতে না পারলেও শিক্ষার্থীকে দেওয়া হবে রিপোর্ট কার্ড।

বিষয়ভিত্তিক মূল্যায়নের ক্ষেত্রে সাতটি স্কেল বা ধাপের কথা বলা হয়েছে। এগুলো হচ্ছে— প্রারম্ভিক (ইলিমেন্টারি), বিকাশমান (ডেভেলপিং), অনুসন্ধানী (এক্সপ্লোরিং), সক্রিয় (অ্যাকটিভেটিং), অগ্রগামী (অ্যাডভানসিং), অর্জনমুখী (এচিভিং) ও অনন্য (আপগ্রেডিং)। শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করে কোন শিক্ষার্থী কোন ধাপে আছে, তা নির্ধারণ করতে এই সাতটি স্কেল বা ধাপ রাখা হয়েছে। ‘প্রারম্ভিক’ মানে হলো সবচেয়ে নিচের ধাপ। আর ‘অনন্য’ হলো সবচেয়ে ভালো। 

প্রতিটি পারদর্শিতার ক্ষেত্রের জন্য আলাদাভাবে শিক্ষার্থীর অবস্থান নির্ধারণ করা হবে। প্রতিটি পারদর্শিতার ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট নির্দেশক (পিআই) শিক্ষার্থীর অর্জিত মাত্রাগুলো সমন্বয় করে ওই পারদর্শিতার ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীর অবস্থান কী, তা বোঝানো হবে। শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও শিক্ষক সবাই যাতে শিক্ষার্থীর অবস্থান স্পষ্টভাবে বুঝতে পারে, এ জন্য এই সাতটি অবস্থানকে সাতটি স্তর বিশিষ্ট ‘মূল্যায়ন স্কেল’ দিয়ে প্রকাশ করা হয়েছে। 

Class 7 Sanmansik Mullayon Islam Shikkha Question & Answer 2024

প্রতিষ্টানের জন্য নির্দেশনা

১. জাতীয় শিক্ষাক্রম ২০২২ এর আলোকে আগামী ০৩/০৭/২০২৪ থেকে ৩০/০৭/২০২৪ পর্যন্ত ২০২৪ শিক্ষাবর্ষের জন্য যষ্ঠ থেকে নবম ষান্মাসিক সামষ্টিক মূল্যায়ন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। মূল্যায়ন কার্যক্রম পরিচালনার সময়সূচী এবং বিষয়ভিত্তিক সর্বশেষ কোন অভিজ্ঞতা/অধ্যায় পর্যন্ত ষান্মাসিক সামষ্টিক মূল্যায়নের আওতায় আসবে তা ইতোমধ্যেই প্রেরণ করা হয়েছে।

২. ষান্মাসিক সামষ্টিক মূল্যায়ন কার্যক্রম শুরুর পূর্বেই অর্থাৎ আগামী ০৩/০৭/২০২৪ তারিখের মধ্যে সম্পাদিত সকল বিষয়ের শিখন অভিজ্ঞতার পারদর্শিতার নির্দেশকসমূহ নৈপুণ্য অ্যাপে ইনপুট দিতে হবে।

৩. মূল্যায়ন কার্যক্রম চলাকালীন অর্থাৎ ০৩/০৭/২০২৪ থেকে ৩০/০৭/২০২৪ পর্যন্ত নির্দিষ্ট দিবসে মূল্যায়ন কার্যক্রম ব্যতীত ষষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণির কোনো শ্রেণি কার্যক্রম পরিচালনা করা যাবে না।

৪. প্রেরিত সময়সূচি অনুসারে নির্ধারিত দিনে একটি বিষয়েরই মূল্যায়ন অনুষ্ঠিত হবে। অর্থাৎ নির্ধারিত বিষয়ের মূল্যায়ন কার্যক্রম নির্ধারিত দিনেই শেষ করতে হবে। পূর্বের ন্যায় কোন শ্রেণির একটি বিষয়ের মূল্যায়ন কার্যক্রম একাধিক দিনে সম্পন্ন করা যাবে না।

৫. বিষয়ভিত্তিক মূল্যায়ন কার্যক্রম নির্ধারিত দিনে সর্বোচ্চ পাঁচ ঘন্টার মধ্যে সম্পন্ন করতে হবে। তবে মূল্যায়ন কার্যক্রমের উপর নির্ভর করে একটি মধ্যবর্তী বিরতি দেয়া যেতে পারে।

৬. মূল্যায়ন কার্যক্রমে হাতে-কলমে কাজ এবং কার্যক্রমভিত্তিক লিখিত অংশ উভয় ধরনের কার্যক্রম আছে। হাতে-কলমে কাজের জন্য প্রয়োজনীয় উপকরণ এবং লিখিত অংশের জন্য প্রয়োজনীয় খাতা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কর্তৃক সরবরাহ করতে হবে।

৭. বিষয়ভিত্তিক মূল্যায়নে উপকরণে বৈচিত্র রয়েছে যা বিস্তারিত মূল্যায়ন নির্দেশিকায় উল্লেখ করা থাকবে। মূল্যায়ন কার্যক্রম পরিচালনার জন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কর্তৃক উপকরণ সরবরাহের জন্য সাধারণ নির্দেশনাসমূহ নিম্নরুপ:

ক্রমমূল্যায়ন কার্যক্রমউপকরণের উদাহরণ
হাতে কলমে কাজশিক্ষার্থী সংখ্যা বিবেচনায় পোস্টার তৈরির জন্য সাদা/রঙিন কাগজ, সাইন পেন, কাঁচি, আঠা বা গাম ইত্যাদি।
লিখিত অংশ১৬ পাতার খাতা, প্রয়োজনে অতিরিক্ত পাতা সরাবরাহ করতে হবে।
মূল্যায়নপত্রসরবরাহকৃত মূল্যায়নপত্র থেকে শিক্ষার্থীর নির্দেশনা ও মূল্যায়ন/প্রশ্নপত্র অংশটি ফটোকপি করে সকল শিক্ষার্থীদের সরবরাহ করতে হবে।

৮. উপকরণ সরবরাহের ক্ষেত্রে মনে রাখতে হবে কোন উপকরণই যেন ব্যয়বহুল না হয়। রিসাইকেল, রিউইজ, আপসাইকেল উপকরণ ব্যবহার করতে হবে।

৯. অভিভাবক বা শিক্ষার্থীকে উপকরণ সরবরাহের জন্য কোনো নির্দেশনা প্রদান করা যাবে না।

১০. মূল্যায়ন কার্যক্রম পরিচালনার জন্য শিক্ষার্থীদের অভিভাবকের নিকট থেকে সীমিত পরিমাণে মূল্যায়ন কার্যক্রম পরিচালনা ফি নেয়া যেতে পারে।

১১. মূল্যায়ন কার্যক্রম পরিচালনার জন্য মূল্যায়ন নির্দেশনা মূল্যায়ন কার্যক্রম শুরুর পূর্বের দিন নৈপুণ্য অ্যাপের প্রতিষ্ঠান ড্যাসবোর্ড (master.noipunno.gov.bd) এবং সংশ্লিষ্ট অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে। বিষয়ভিত্তিক মূল্যায়ন নির্দেশনা মূল্যায়ন কার্যক্রমের সময়সূচি অনুসারে নির্ধারিত দিনের পূর্বের দিন পাওয়া যাবে।

১২. মূল্যায়ন নির্দেশনায় শিক্ষকের জন্য করণীয়, শিক্ষার্থীদের জন্য করণীয়, মূল্যায়ন পত্র, শিক্ষকের জন্য পর্যবেক্ষণ চেক লিস্ট এবং মূল্যায়ন কার্যক্রম পরিচালনার জন্য বিষয়ভিত্তিক উপকরণের বিবরণ থাকবে।

১৩. ষান্মাসিক সামষ্টিক মূল্যায়ন কার্যক্রম পরিচালনা শেষে শিক্ষার্থীর অর্জিত পারদর্শিতার রেকর্ডের ভিত্তিতে নৈপুন্য অ্যাপে পারদর্শিতার নির্দেশক (পিআই) নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে ইনপুট দিতে হবে।


আমাদের সকল আপডেট নিয়মিত পেতে “E-Shikkha” ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন।

শিক্ষার সব খবর সবার আগে জানতে “শিক্ষা-কেয়ার.কম” ওয়েবসাইটের সাথেই থাকুন।

শিক্ষামূলক ভিডিও মিস করতে না চাইলে “ই-শিক্ষা” ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করে নিন।

Leave a Comment

error: Content is protected !!